Warning: Use of undefined constant jquery - assumed 'jquery' (this will throw an Error in a future version of PHP) in /home4/chulkati24bd/public_html/wp-content/themes/NewsDemo7Theme/functions.php on line 28

রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
চুলকাঠি ২৪  ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে।    
শিরোনাম :
জাপান থেকে গাড়ি ভর্তি জাহাজ আসল মোংলা বন্দরে পাঠশালা বিদ্যালয়ের অপসারিত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে পদ গ্রহণের অভিযোগ আন্তর্জাতিক জনসেবা দিবসে বাগেরহাটে আলোচনা সভা বাগেরহাটে পিটিয়ে হোটেল মালিকের হাত ভেঙ্গে দিলো ভোক্তা ফকিরহাটের শুভদিয়ায় প্রধান শিক্ষক লাঞ্চিত: শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ফকিরহাটে করোনা সহিষ্ণু খাদ্যাভ্যাস গঠনে চাষাবাদ বিষয়ক দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ: বীজ ও চারা বিতরণ ফকিরহাটে নারীর স্বর্ণেরচেইন ছিনতাই: জনমনে আতংক ফকিরহাটে নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা অভিযোগে আটক: মামলা দায়ের রামপাল সঃ কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের  বিরুদ্ধে অর্ধ কোটি টাকার অনিয়ম দূর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলেও টনক নাড়েনি কর্তৃপক্ষের  ফকিরহাটে পুলিশের হাতে বিপুল পরিমানে মাদকসহ কারবারি আটক
“আবাহওয়া অনুকুলে থাকায়” ফকিরহাটে সরিষার বাম্ফার ফলন চাষিদের মুখে সোনালী হাঁসি

“আবাহওয়া অনুকুলে থাকায়” ফকিরহাটে সরিষার বাম্ফার ফলন চাষিদের মুখে সোনালী হাঁসি

পি কে অলোক, নিজস্ব প্রতিবেদক
বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার বেশ কয়েকটি বিলে তেল জাতীয় ফসল সরিষার চাষ করায় এবার বাম্ফার ফলন হয়েছে। কৃষি অফিসের নানাবিধ পরামর্শ সার বীজ প্রদান এবং চলতি মৌসুমে আবাহওয়া অনুকুলে থাকায় বিলগুলিতে সরিষার বাম্ফার ফলন হয়েছে। আগামী খরিপ মৌসুমে সরিষা চাষিরা চলতি বছরের চেয়ে দ্বীগুন জমিতে সরিষার চাষ করবেন বলেও অভিমত ব্যাক্ত করেছেন। জানা গেছে, উপজেলা কৃষি অফিস তেল জাতীয় ফসল উৎপাদনের জন্য স্থানীয় কৃষকদের নিয়ে নানা প্রকার কর্মপরিকল্পনা করেই চলছিলেন। যারই অংশ হিসাবে উপজেলা কৃষি অফিস উপ-সহকারীদের মাধ্যমে স্থানীয় কৃষকদের সরিষা চাষের উপর নানা প্রকার প্রশিক্ষন পরার্মশ সার বীজ ও নগত অর্থ প্রদান করে চলছিলেন। সে মোতাবেক বেশ কয়েকটি বিলে প্রায় শতাধিক কৃষক তেল জাতীয় ফসল সরিষার চাষ করেন। প্রথম দিকে কৃষকরা একটু ঘবড়ে গেলেও ধর্য না হারিয়ে তারা আদাজল খেয়ে মাঠে পড়ে থাকেন সরিষা চাষের জন্য। চাষিরা ভাবতেও পারেননী এত কম খরচে অধিক ফসল পাবেন। তাদের প্রত্যেকের জমিতে বাম্ফার ফসল হয়েছে।পিলজংগ ইউনিয়নের টাউন নওয়াপাড়া গ্রামের সরিষা চাষি মোঃ ইউনুস আলী শেখ বলেন, প্রথমে স্যারদের কথায় আমরা তেমন একটা গুরুত্ব দেয়নী। পরে চিন্তা করলাম একই জমিতে বারবার একই ফসল চাষ করলে জমির র্উবরতা শক্তি হারিয়ে ফেলে। তাই স্যারদের কথামত আমি সহ বেশ কয়েকজন চাষি সরিষার চাষ শুরু করেছি। মোঃ আসাদুজ্জামান ফকির বলেন আউশ ধান কাটার পরে নভেম্বর মাসের ১০/১৫তারিখের মধ্যে জমিতে চাষ দিতে হবে। এর পর জমিতে শক্তি যোগানোর জন্য জৈব সার সহ বিভিন্ন প্রকার সার দিয়ে তার পর বীজ বপন করতে হবে। বীজ বপনের পর চারা গজালে তা যখন ৫/৬ইঞ্চি লম্বা হবে তখন ইউরিয়া সার ও সেচ দিয়ে বপনকৃত চারার যত্ন নিতে হবে। এবং ফুল হলে তাতেও সেচ ও সার দিয়ে যত্ন নিলে ফসল ভাল হবে। এছাড়াও একই গ্রামের কবির হাওলাদার তার ৫০শতক জমিতে, জেসমিন আক্তার ৫০শতক জমিতে, কুদ্দুস শেখ তার ৫০শতক জমিতে, নজরুল মল্লিক ৩৩শতক জমিতে, নজরুল হাওলাদার ৫০শতক জমিতে, ইকরাম হোসেন মোড়ল তার ৩০শতক জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। অনুরুপ অগার্নিক বেতাগা বিলে অরুন মজুমদার ৭৫শতক জমিতে, গনেশ দাশ ৫০শতক জমিতে, প্রকাশ দাশ ৫০শতক জমিতে মোস্তাজ শেখ ৫২শতক জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। এছাড়াও বাহিরদিয়া-মানসা ইউনিয়নে, শুভদিয়া ইউনিয়নে এবং ফকিরহাট সদর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি ব্লকে স্থানীয় চাষিরা সরিষার চাষ করেছেন। আবাহওয়া অনুকুলে থাকায় বিল গুলিতে সরিষার বাম্ফার ফলনও হয়েছে।
উপ-সহকারী কৃষি অফিসার বিপুল কুমার পাল এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, টাউন নওয়াপাড়া গ্রামের ২০/২২জন চাষি তাদের পরামর্শক্রমে চাষিদের নিজেস্ব জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। আবাহাওয়া যদি ভাল থাকে তাহলে তাদের ফসল ঘরে তুলতে কোন সমস্যা হবে না। উপ-সহকারী প্রদীপ কুমার মন্ডল এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, আমরা উপজেলা কৃষি অফিসের মাধ্যমে সরিষা চাষিদের বীজ ও সার প্রদান করেছি। শুধু তাই নয় জনপ্রতি তাদেরকে ১হাজার করে টাকাও প্রদান করা হয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ নাছরুল মিল্লাত এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, সরিষা চাষে লাভক্ষতির কথা চিন্তা না করে নিজেদের প্রয়োজনে এটির চাষ করা আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা চাই একই জমিতে বারবার একই ফসলের চাষ না করে তেল জাতীয় ফসলের চাষ করতে। কারণ জমিতে বারবার একই ফসলের চাষ করলে জমির উর্বরতা শক্তি হারিয়ে ফেলে। তাই আমরা কৃষকদের সরিষা চাষে উৎসাহ যোগাচ্ছি। এতে নিজেদের তেল খৈল সহ নানা চাহিদা অনেকাংশে পুরণ করা সম্বাব হবে। এবিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বাগেরহাট এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ শফিকুল ইসলাম এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, কৃষিতে আমাদের অভাবনীয় সাফল্য রয়েছে, তেল জাতীয় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হলে ১ইঞ্চি জমিও ফেলে রাখলে হবে না। তাই কৃষিকে আরো বেগবান করতে হলে সকলের প্রচেষ্টা অত্যান্ত জরুরী বলেও তিনি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি