বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বাগেরহাটে প্রতিবন্ধিকে মারপিটের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন রামপালে কাদিরখোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৪১ তম বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠিত বাগেরহাটে “উগ্রবাদ প্রতিরোধে ছাত্র, গণমাধ্যমকর্মী ও সুশীল সমাজের ভূমিকা” শীর্ষক দিনব্যাপি সেমিনার অনুষ্ঠিত ফ্রী ফায়ার গেম নিয়ে দ্বন্দ, ভ্যান চালক বন্ধুকে হত্যা করে গ্যারেজ মেকানিক বাগেরহাটে সন্ত্রাস দমন ও আন্তর্জাতিক অপরাধ প্রতিরোধে দিনব্যাপী সেমিনার আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে দেশে লুটপাটের মহোৎসব চলছে সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে জেলে আহত হওয়ার দু’দিন লোকালয়ে বাঘের গর্জন নির্বাহী প্রকৌশলীর উপর হামলার প্রতিবাদে ফকিরহাটে মানববন্ধন ফকিরহাট খাদ্যগুদামে বিদায়ী ও নবাগত কর্মকর্তাদের সংবর্ধনা ফকিরহাটে কলেজ ছাত্র হত্যার ঘটনায় মামলা,দু’জন আটক
“উপজেলা কৃষি অফিসের মহতী উদ্যোগ” ফকিরহাটে এই সর্ব প্রথম বৃহৎ পরিসরে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে ধানের চারা রোপন

“উপজেলা কৃষি অফিসের মহতী উদ্যোগ” ফকিরহাটে এই সর্ব প্রথম বৃহৎ পরিসরে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে ধানের চারা রোপন

পি কে অলোক, (নিজস্ব প্রতিবেদক) :
বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের তত্তাবধায়নে এই প্রথম বৃহৎ পরিসরে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে ধানের চারা রোপন করার কাজ শুরু হয়েছে। ফলে কৃষকের জমিতে শ্রমিক সংকট লঘব, উৎপাদন খরচ কম ও স্বল্প পুজিতে অধিক ফলন পাওয়ার যে স্বপ্ন তা অনেকাংশে পূরণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে এঅঞ্চলের কৃষকরা কৃষিতে আরো একধাপ এগিয়ে যাচ্ছেন। এধারা অব্যাহত থাকলে স্বল্প পুজিতে অধিক ফসল ঘরে তুলাতে কৃষকদের কোন সমস্যাই থাকলো না।
জানা গেছে, কৃষি প্রনোদনা কাযার্ক্রমের আওতায় সমলয় চাষাবাদের উদ্দের্শে ট্রেতে চারা উৎপাদন করার জন্য উপজেলা কৃষি অফিস ব্যাপক কার্যাক্রম পরিচালনা করেই চলেছেন। যারই অংশ হিসাবে তারা এই প্রথম বৃহৎ পরিসরে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে ধানের চারা রোপন করার কাজ শুরু করেন। তাঁরা প্রথমে উপজেলা বেতাগা ইউনিয়নের মাসকাটা বিল ও বাহিরদিয়া ইউনিয়নের হুচলা গ্রামের শিল্পির মোড়ে অবস্থিত একটি বিলে এ কাযার্ক্রম পরিচালনা করেন। বেতাগার মাসকাটা বিলে ৩৮জন চাষি ও হুচলা গ্রামের শিল্পির মোড়ের বিলে ৩৮জন চাষি সহ মোট ৭৬জন চাষিকে প্রায় ৫০একর জমিতে জলক রাজ ও বেবিলন-২ ধানের চারা রোপন করেছেন। এই পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন করে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্যে চারা রোপন করলে কৃষকরা লাভবান হবেন। উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, এই কার্যাক্রমে মুলত যে সমস্ত কৃষক তাদের জমিতে শ্রমিক পাচ্ছেন না,তাদের শ্রমিক সংকট লঘব হওয়ার পাশাপাশি উৎপাদন খরচ কম ও কম বয়সি চারা রোপনের জন্য ফলন বৃদ্ধি পাবে।
স্থানীয় চাষি শেখ আসাদুজ্জামান, শেখ তরিকুল ইসলাম, শেখ মাহাম্মুদ আলী, শেখ কুতুব উদ্দিন, জাহাংগীর শেখ, সুলতান শেখ ও ইব্রাহিম শেখ সহ একাধিক চাষি বলেন, এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ করলে চাষিরা লাভবান হবেন বেশি, কারণ ইহাতে শ্রমিক সংকট নিরসন, উৎপাদন খরচ কম ও স্বল্প পুজিতে অধিক ফলন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে কৃষকরা বেশি উপকৃত হবেন। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ নাছরুল মিল্লাত, উপ-সহকারী কৃষি অফিসার প্রদীপ কুমার মন্ডল, দেবদাশ বালা ও বিপুল কুমার পাল এর সাথে আলাপ করা হলে তারা বলেন, উপজেলা বেতাগা ইউনিয়নের মাসকাটা বিলের ৩৮জন চাষি ও বাহিরদিয়া ইউনিয়নের হুচলা গ্রামের ৩৮জন চাষি এবার প্রায় ৫০একর জমিতে এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ শুরু করছেন। আগামীতে এর সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। এধারা অব্যাহত রাখলে এঅঞ্চলের কৃষকরা আরো বেশি লাভবান হবেন বলেও তাদের ধারনা।

 

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers