Warning: Use of undefined constant jquery - assumed 'jquery' (this will throw an Error in a future version of PHP) in /home4/chulkati24bd/public_html/wp-content/themes/NewsDemo7Theme/functions.php on line 28

বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
চুলকাঠি ২৪  ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে।    
মোংলায় শ্রাবন বাহিনীর হয়রানী ও অত্যাচার হতে পরিত্রান পেতে ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন

মোংলায় শ্রাবন বাহিনীর হয়রানী ও অত্যাচার হতে পরিত্রান পেতে ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক

মোংলা স্থায়ী বন্দর এলাকার শ্রাবন ও তার বাহিনীর হয়রানী-অত্যাচার হতে পরিত্রান পেতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক ঠিকাদার ব্যবসায়ী। শনিবার সকাল ১১ টায় মোংলা প্রেস ক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। লিখিত বক্তব্যে বন্দরের ঠিকাদার ব্যবসায়ী দেলেয়ার হোসেন জানান, আমি মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের একজন ঠিকাদার ব্যবসায়ী ও সাধারণ নিরীহ মানুষ। বন্দর মার্কেটের জন্মলগ্ন হতে এখানে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। বিগত দিনে নানা কারনে এ বন্দরটির দূরাব্যবস্থার মধ্যেও এখানকার ব্যবসায়ী ও সাধারন মানুষ খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করলেও শান্তি শংৃখলার বিঘœ ঘটেনি। অনেক অর্থ কষ্টের মধ্যেও পরস্পর সকলে সুশৃংখলবদ্ধ থাকলেও সম্প্রতি কথিত সংবাদকর্মীর নাম ব্যবহারকারী সোহেল মাহামুদ ওরফে টাউট শ্রাবন ও তার দালাল বাহিনীর হাতে আমি ও আমার পরিবারসহ স্থানীয় আরও অনেকে জিম্মি হয়ে পড়েছি ।

তিনি জানান, বিগত কয়েক বছর আগে বন্দর বিপনী মার্কেট সংলগ্ন এলাকায় টিভি,রেডিও ঘড়ির মেকার সোহেল মাহামুদ শ্রাবনের আগমন ঘটে। অল্প সময়ের মধ্যেই সু-চতুর এ সোহেল মাহামুদ নিজের নাম পাল্টে শ্রাবন নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। বন্দর ও ইপিজেট এলাকায় চাকরি এবং ব্যবসা বানিজ্য ভাগিয়ে আনা ও পাইয়ে দেয়ার কথা বলে সে বিভিন্ন চাকুরি প্রার্থী ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মসাৎ করে। এ বিষয় কেউ থানা পুলিশ ও আইনের আশ্রয় নিলেও টাউট শ্রাবনের দালাল বাহিনীর ভয়ে অনেকে মুখ বুঝে সহ্য করে এলাকা ছেড়েছে। তার নেতৃত্বাধীন এ দালাল বাহিনীর একাধিক সদস্য তৎপর রয়েছে বন্দর এলাকায়। তাদের হাতে হয়রানীর শিকার হয়েছেন বন্দরের অনেক কর্মচারীও। মাদক ব্যবসা সহ দুশ্চরিত্রা মহিলা দিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও বন্দর কর্মচারীদের হেনস্থা সহ বিভিন্ন ফাঁদে ফেলে তাদের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা অর্থ আদায় করে আসছে। সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের হেনস্থা করে অর্থ আদায়ের লালসা তার নিত্য নৈমত্তিক ঘটনায় পরিনত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ওই ব্যবসায়ী বলেন, কথিত সংবাদকর্মী পরিচয়দানকারী এই সোহেল মাহামুদ শ্রাবন নিজের নামে বন্দর বিপনী মার্কেটের একটি দোকান কক্ষ ব্যবহার এবং মালিকানার দাবীদার হিসেবে সেখানেই অবাঁধে নিজের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। দিনের আলোতে তার ব্যবহৃত দোকান ঘরের কক্ষটি প্রায় বন্ধ থাকলেও সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সেখানে তার রামরাজত্ব শুরু হয়। গভীর রাত পর্যন্ত চলে মাদক সেবনকারীদের বেপরোয়া তৎপরতা। এ ছাড়া গভীর রাত অবদি তার দালাল চক্রের সদস্য ছাড়াও অপরিচিত লোকজনের আনাগোনায় স্থানীয় ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে আতংকগ্রস্থ হয়ে থাকতে হয়। তার এহেন অপকর্মের বিরুদ্ধে কেহ মুখ খোলার সাহস পর্যন্ত পায় না।

ঠিকাদার ব্যবসায়ী লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, স্থায়ী বন্দর এলাকায় অবাধে মাদকসেবন, উশৃংখল আচরনের বিরুদ্ধে কথা বলায় আমার স্ত্রী ৪ নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও মানবাধীকার কর্মী শিউলী ইয়াসমীন এবং পরিবারের অন্য সদস্যরা সোহেল মাহামুদ ওরফে শ্রাবনের আক্রোশের মুখে পড়েন। এমনকি আমার স্ত্রী শিউলী ইয়াসমীনকে কয়েক দফায় জীবন নাশের হুমকিও দেয়া হয়। গত ৯ অক্টোবর আমার স্ত্রী শিউলী ইয়াসমীন পাওয়ার হাউজ মোড় সংলগ্ন দলীয় কার্যালয় যাওয়ার পথে সোহেল মাহামুদ ওরফে শ্রাবন তার দলবল নিয়ে বন্দর এলাকার বাইপাস সড়কে আকস্মিক হামলা- মারধর সহ প্রকাশ্য শ্লিলতাহানী ঘটনায়। পরবর্তীতে নিরুপয় হয়ে আদালতে মামলা দায়ের ও আইনের আশ্রয় নিই। এ মামলাটি পুলিশের বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগে তদন্তনাধীন রয়েছে। এ কারনে ক্ষুব্ধ হয়ে গত ২৩ অক্টোবর মধ্য রাতে শ্রাবন মদ্যপান সহ দূস্কৃতকারীদের সঙ্গে নিয়ে দোকান ঘরের বিদ্যুৎ মিটার ভাংচুর সহ সংযোগ বিচ্ছিন্ন সহ বিদ্যুৎ সরবরাহের লাইনের তার কেটে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগকে অবগতসহ মোংলা থানায় সাধারণ ডায়রী করা হয়।

এ ছাড়া শ্রাবনের অপরাধ কর্মকান্ড ও নানা অপকর্মের প্রতিবাদ করায় বছর তিনেক আগে বন্দর মার্কেটের মধ্যে মধ্যরাতে সে নিজেই বোমা বিস্ফোরন ঘটিয়ে মোংলা থানার তৎকালীন ওসি লুৎফর রহমানকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে অন্যকে ফাঁসানোর চেষ্টা করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে বিপনী মার্কেটের দোকান কক্ষে শ্রাবনের ব্যবহৃত টেবিলের ড্রয়ারে রক্ষিত ৪টি বোমা উদ্ধার করে। পরে গভীর রাতে মুচলেকা দিয়ে পুলিশের হাত থেকে ছাড়া পায় সে। তার এহেন কর্মকান্ডে স্থায়ী বন্দর এলাকার সুনাম নষ্ট হচ্ছে। এই টাউট শ্রাবন নিজের অপকর্ম আড়াল করতে প্রলোভনের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন লোককে ব্যবহার করে অন্যকে জব্ধ করতে মিথ্য অপবাদসহ নামে,বে-নামে বন্দর কর্তৃপক্ষ সহ নানা দপ্তরে মিথ্যা কল্পকাহিনীর অভিযোগ দায়ের সহ হয়রানী করে থাকে। তার এমন হয়নারী হতে রক্ষা পায়নি কর্মচারীরাও। তার এহেন কর্মকান্ডে স্থায়ী বন্দর বিপনী মার্কেট এলাকার ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থা হতে পরিত্রান পেতে স্থানীয় প্রশাসন ও বন্দর কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ব্যবসায়ী মোঃ দেলোয়ার হোসেন। সংবাদ সম্মেলেনে ওই ব্যবসায়ী ও তার পরিবারের সদস্য ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্থরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি