শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ

আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে ।

শিক্ষানুরাগী ও সচেতন মহলে চরম ক্ষোভ” শিক্ষক ফিরোজের বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেয়নি জেলা শিক্ষা অফিস

শিক্ষানুরাগী ও সচেতন মহলে চরম ক্ষোভ” শিক্ষক ফিরোজের বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেয়নি জেলা শিক্ষা অফিস

চুলকাঠি ডেস্ক : বাগেরহাট সদর উপজেলার হাকিমপুর সামসুল হুদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সদ্য সাময়িক বরখাস্ত হওয়া দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষক শেখ ফিরোজ আহম্মেদ কর্তৃক উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সীল স্বাক্ষর জালিয়াতী ও অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে লোন উত্তোলনের ঘটনায় অভিযোগ দাখিলের প্রায় ১মাস অতিবাহিত হলেও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনী। যে কারনে ম্যানেজিং কমিটি সহ সচেতন মহলে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তাঁরা দ্রুত তদন্ত পূর্বক দোশিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী তুলেছেন।

অভিযোগে জানা যায়,উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থাকা কালিন সময়ে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষক শেখ ফিরোজ আহম্মেদ রুপালী ব্যাংক বেতাগা বাজার শাখা হতে তাঁর বেতনের জামানতে একটি লোন উত্তোলন করেন। নিয়মানুযায়ী সেই লোনের আবেদন ফর্মে তাঁর প্রত্যায়নকারী কর্তৃপক্ষ হিসাবে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি/উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এর সীল ও স্বাক্ষরের প্রয়োজন ছিল। সেই সীল স্বাক্ষরে উক্ত প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটি, উপজেলা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে তাহার লোনের আবেদন ফর্মে সভাপতি অথবা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার স্বাক্ষরের স্থানে উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার এসএম হিসামূল হককে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাজিয়ে স্বাক্ষর করান। শুধু তাই নয় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার সীল মোহরও জাল করে ব্যাংকে জমা দিয়ে লোন উত্তোলন করেছেন। যা চরম অনিয়ম ও দুর্নীতির সামিলমাত্র। এবিষয়টি জানতে পেরে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য শেখ আকতারুজ্জামান টুকু ৭অক্টোবর-২০২০ইং তারিখে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট ১টি অভিযোগ দাখিল করেন। তবে ইতিমধ্যে প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মদকে নিয়োগে চরম অনিয়ম ও দূর্নীতির দায়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের সুপারিশ ক্রমে গত ১৪ অক্টোবর সাময়িক বরখাস্ত করে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করার জন্য যশোর শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করেছে বিদ্যালয়ের মানেজিং কমিটি এবং একই সাথে তাঁর নিয়োগে চরম দুর্নীতি থাকায় তার গৃহীত সরকারি বেতনের সমুদয় অর্থ ফেরৎ দিতে বলে নির্দ্দেশ দিয়েছে।কিন্তু স্বাক্ষর জালিয়াতির ঘটনায় অভিযোগ দাখিলের প্রায় ১মাস অতিবাহিত হলেও অদ্যবদী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননী। যে কারনে ম্যানেজিং কমিটি সহ সচেতন মহলে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা অতিদ্রুত বিষয়টি তদন্ত পূর্বক দুষিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী করেছেন।

এ ব্যাপারে জেলা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অফিসার মোঃ কামরুজ্জামান এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি সরজমিনে তদন্ত করে বিধিমোতাবেক ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers