সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৬:২২ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ

আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে ।

শিরোনাম :
রাখালগাছি ইউপি নির্বাচনে দলীয় ভাবে ও জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রবিউল ইসলাম ফারাজী রামপালে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি থেকে বাদ দেওয়ায় মানববন্ধন বাগেরহাটে কাভার্ডভ্যানের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাগেরহাটে দি হাঙ্গার প্রজেক্টের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস পালিত ফকিরহাট উপজেলাকে এটুআই কর্তৃক স্মাট উপজেলা ঘোষনা মোমিন মেহেদীর ভেরিফায়েড পেইজ হ্যাকড রামপাল পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন রবিউল ইসলাম তোয়াব খানের মৃত্যুতে অনলাইন প্রেস ইউনিটির শোক “সেভ দ্য রোড-এর প্রতিবেদন” সেপ্টেম্বরে ৩ হাজার ৫৯৫ দুর্ঘটনায় প্রতিদিন আহত ১১৭, নিহত ১৭ জন উন্মোচন ক্লাব ও আবাহনী ক্রীড়াচক্র যৌথ চ্যাম্পিয়ন
আমাদের কাছে পূজা মানেই শিকদার বাড়ির দুর্গাপূজা’

আমাদের কাছে পূজা মানেই শিকদার বাড়ির দুর্গাপূজা’

সোবহান হোসাইন, (চুলকাঠি২৪ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রকাশক) : ‘আমাদের কাছে পূজা মানেই শিকদার বাড়ির দূর্গাপূজা। এবার শিকদার বাড়িতে নেই কোন  বাড়তি আয়োজন নেই। তারপরও হাজার হাজার পূজাভক্ত ও দর্শানার্থী  ছুটে এসেছে। মা দুর্গাকে দেখতে। প্রার্থনা করেছে দুর্গা মা’য়ের কাছে। এটাই বড় পাওয়া আমাদের।’

আজ রোববার (২৫ অক্টোবর) বিকেলে দুর্গাপূজার নবমীতে বাগেরহাটের শিকদার বাড়ির পুজামণ্ডপে ছুটে  আসা বাধন ও সোনালী সাহা এভাবে নিজেদের অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন। শুধু তারা নয়, এমনই অভিব্যক্তি পুজামণ্ডপে আসা ভক্তদের।

দেশের দক্ষিণাঞ্চলে দূর্গাপূজা মানেই বাগেরহাটের হাকিমপুর গ্রামের শিকদার বাড়ির দুর্গাপূজা। প্রতিমার সংখ্যার দিক দিয়ে এই পূজামণ্ডপ এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ। প্রতিবছরই দেশের বিভিন্ন জেলা ছাড়াও পাশের দেশ ভারত, নেপাল থেকে মানুষ এখানে পূজা দেখতে আসে। গত বছরে ৮৫১টি প্রতিমা দিয়ে এই মণ্ডপে দুর্গাপূজা হয়। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে সংক্রমণ এড়াতে মূল মন্দিরে শুধু মা দূর্গার প্রতিমা দিয়েই শেষ হচ্ছে এবারের পূজা। তারপরও সনাতন ধর্মালম্বীরা মা দূর্গার টানে ছুটে এসেছেন এই মন্দিরে।খুলনার ডুমুরিয়া থেকে ফাইল ছবি : দূর্গাপূজা ২০১৯ লাইভ সাক্ষাৎকার (সময টিভি) : আসা জয়তী মন্ডল, সাথী পাল, প্রণব বিশ্বাস বলেন, তারা প্রতি বছরই শিকদার বাড়িতে আসেন। এ বছর আগেই শুনেছেন শিকদার বাড়িতে তেমন আয়োজন থাকবে না। তারপরও এসেছেন মা দুর্গাকে দেখতে। এখানে এসে খারাপও লেগেছে, আগের সেই আমেজ নেই দেখে। তারা মা দূর্গার কাছে পৃথিবী থেকে করোনা মুক্তির জন্য প্রার্থনা করেছেন। ঝালকাঠি জেলা থেকে আসা উৎপল, ননী গোপালসহ কয়েকজন বলেন, বাড়তি আয়োজন না থাকলেও শিকদার বাড়িতে এসে তাদের ভালো লেগেছে। তারা চান, আগামী বছর শিকদার বাড়িতে আগের সেই আমেজ যেন ফিরে আসে।

শিকদার বাড়ি পূজামণ্ডপের আয়োজক লিটন শিকদার বলেন, করোনা সংক্রমণ এড়াতে এবারের দূর্গাপূজা সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে। প্রথম থেকে মণ্ডপে আসার জন্য ভক্ত ও দর্শনার্থীদের নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। তারপরও প্রাণের টানে মা দূর্গার দর্শন পেতে অনেকে এসেছেন।তিনি বলেন, তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন, সরকারঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপন করতে। আগামী দূর্গাপূজার আগে পৃথিবী যদি স্বাভাবিক হয়, তাহলে আগের মতো আয়োজনে পূজা করবেন বলে জানান শিকদার বাড়ি পূজামণ্ডপের আয়োজক লিটন শিকদার।

২০১১ সালে বাগেরহাট সদর উপজেলার হাকিমপুর গ্রামের শিকদার বাড়িতে ২৫১ প্রতিমা নিয়ে এই মণ্ডপের যাত্রা শুরু হয়। এরপর থেকে প্রতি বছরই বাড়তে থাকে প্রতিমার সংখ্যা। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালে প্রতিমার সংখ্যা দাঁড়ায় ৬৫১টি। ২০১৭ সালে ৭০১টি এবং ২০১৮ সালে ৮০১টি প্রতিমা নিয়ে শিকদার বাড়িতে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। সর্বশেষ ২০১৯ সালে ৮৫১টি প্রতিমা স্থাপন করা হয় এই মণ্ডপে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers