শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

বিশেষ বিজ্ঞপ্তি
ভর্তি চলিতেছ রৌফন রেডিয়ান্ট স্কুলে প্লে গ্রুপ থেকে শুরু। চুলকাটি বাজার, (রুটস বাংলাদেশ) বনিকপাড়া রোড, বাগেরহাট।
সংবাদ শিরোনাম :
জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বাগেরহাট জেলা-কমিটি অনুমোদন নয়ন স্মৃতি নাইট শর্ট ক্রিকেট টুর্নামেন্টে সৈয়দপুর চ্যাম্পিয়ন আত্মসমর্পণকারী দস্যুরা পেল র‌্যাবের ঈদ উপহার বাগেরহাটে দুস্থ ও অসহায়দের মধ্যে ঈদ উপহার বিতরণ করেছেন শেখ তন্ময় এমপি বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে মোংলায় মানববন্ধন বর্ণাঢ্য আয়োজনে রামপালে জাতীয় ভোটার দিবস পালন রামপালে স্থানীয় সরকার দিবস উদযাপন  বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা  প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী বিতরণ করেছে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোন পশুর চ্যানেলে তলা ফেটে দুর্ঘটনাকবলীত কার্গো জাহাজটি এখও ঝুকি মুক্ত নয়, চলছে কয়লা অপসারণ মোংলায় কয়লা নিয়ে পশুর নদীতে কার্গো ডুবি, ১১ নাবিক জীবিত উদ্ধার
নতুন সিনেমা সংকটে হলগুলো

নতুন সিনেমা সংকটে হলগুলো

সিনেমা হল খোলা নিয়ে অপেক্ষায় ছিলেন হল মালিক ও প্রযোজকরা। ইন্ডাস্ট্রির এই সংকটময় সময়ে দীর্ঘদিন হল বন্ধ থাকায় বড় অংকের লোকসান গুনতে হয় হল মালিকদের। অন্যদিকে প্রযোজকরাও সিনেমা শেষ করে মুক্তি না দিতে পারায় আটকে যায় লগ্নি। দেশের অন্যান্য বিনোদন মাধ্যম চালু হলেও সব শেষে হল খোলার অনুমতি দেয় সরকার। অবশেষে ১৬ অক্টোবর সারাদেশের হল খোলার অনুমতি দেওয়া হয়। এই খবরের পরেও হল মালিকদের মুখে হাসি নেই। সারাদেশে ৬৬টি হল খোলা হয়। হিরো আলমের সিনেমা ছাড়া কোনো নতুন সিনেমা মুক্তি পায়নি এখনো। যদিও আগামীকাল ‘ঊনপঞ্চাস বাতাস’ সিনেমাটি মুক্তি দেওয়া হবে। তবে শুধুমাত্র স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এটি।এখন পর্যন্ত দেশের অনেক বড় হল খুলেনি। হল মালিকরা বলছেন নতুন সিনেমা না এলে হল খুলবেন না তারা। এই সময়ে হল খুলে বাড়তি লোকসান গুনতে নারাজ হল মালিকরা। অন্যদিকে প্রযোজকরাও এই সময়ে সিনেমা মুক্তি দিতে চাইছেন না।

সেন্সরপত্র পেয়ে প্রায় ২২টি সিনেমা রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়। সেগুলো কবে মুক্তি পাবে এ নিয়ে কিছু জানা যায়নি। হল খুললেও সারাদেশে হলগুলোতে দর্শকের অভাব। স্বাভাবিক সময়েও হলের ওপর দর্শকদের আগ্রহ কমেছে এখন। আর এই করোনার মধ্যে হলে গিয়ে সিনেমা দেখায় উত্সাহী হচ্ছেন না দর্শকরা। যদিও বলা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সিমিত আসনে সিনেমা দেখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবুও এই সময় দর্শকদের আগ্রহ নেই হলে গিয়ে সিনেমা দেখার। পরিচালক মতিন রহমান বলেন, ‘করোনার পরপর যদি ভালো বার্তা দর্শকদের কাছে না পৌঁছানো যায়, তাহলে কিন্তু তারা আর কোনো দিন হলমুখি হবে না। এখন সময়টা ডিজিটাল। মানুষ কোনো কিছু থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলে আর সেদিকে তাকায় না। আমাদের সে দিকটা খেয়াল রাখতে হবে।’

সভাপতি ও মধুমিতা হলের মালিক ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘ভালো ছবি না আসলে হল খুলবো না। যেসব ছবির কোনো কোয়ালিটি নেই সেসব চালাতে চাই না। এতে লাভ তো দূরে থাক, খরচের টাকা ওঠে না। প্রয়োজনে বাইরে থেকে ছবি আনবো, তবু মানহীন কিছু চালাবো না।’ সিনেমা হলের এই দৈনদশার মধ্যে করোনা দেশের সিনেমার ব্যবসাকে আরো পিছিয়ে নিয়ে গেছে। যদিও সিনেমা হলের বিকল্প ব্যবস্থা নিয়ে ভাবছেন সবাই। কিন্তু সিনেমা হলে অবস্থা আবারো কবে ফিরবে তা নিয়ে শঙ্কায় হল মালিকরা।

 

 

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

  1. © স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers