সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে জেলে আহত হওয়ার দু’দিন লোকালয়ে বাঘের গর্জন নির্বাহী প্রকৌশলীর উপর হামলার প্রতিবাদে ফকিরহাটে মানববন্ধন ফকিরহাট খাদ্যগুদামে বিদায়ী ও নবাগত কর্মকর্তাদের সংবর্ধনা ফকিরহাটে কলেজ ছাত্র হত্যার ঘটনায় মামলা,দু’জন আটক প্রকৌশলীর উপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের শাস্তির দাবিতে বাগেরহাটে মানববন্ধন প্রেসক্লাব রামপালের কমিটি গঠন সভাপতি সবুর রানা সম্পাদক সুজন মজুমদার বাগেরহাটে দৈনিক গনমুক্তির ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত মোংলা সুন্দরবনে গোলপাতা আহরন মৌসুম শুরু ফকিরহাটে নিখোঁজ হওয়ার একসপ্তাহ পর কলেজ ছাত্র অনিকের লাশ উদ্ধার ফকিরহাটের পিলজঙ্গের কংগ্রেস মোড়ের অদুরে ছিনতাই সংঘঠিত
ফকিরহাটে খোয়া যাওয়া গুলিসহ শর্টগান ১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি : জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

ফকিরহাটে খোয়া যাওয়া গুলিসহ শর্টগান ১৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি : জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রতীকী ছবি 

আরিফ ঢালী, (নিজস্ব  প্রতিবেদক) : ফকিরহাট উপজেলার আট্টাকী গ্রামের শাহ জামান চৌধুরী লরের ব্যবহৃত .১২ বোর শর্টগান, তিন রাউন্ড গুলি ও দু’টি মোবাইল ফোন তার বাড়ি থেকে গত ৩০ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে চুরি হয়েছে উল্লেখ করে মডেল থানায় তিনি একটি চুরি মামলা দায়ের করেন। তবে ঘটনার পর ১৮ দিন অতিবাহিত হলেও অস্ত্র-গুলি উদ্ধার হয়নি। এদিকে ঘটনাটি চুরি নাকি অন্য কিছু তা নিয়ে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। থানা পুলিশ এবং উক্ত পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৭ টা ১৫ মিনিটে শাহ জামান চৌধুরি লরে ফকিরহাট মডেল থানায় হাজির হয়ে একটি এজাহার দায়ের করেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেন, ২০১৬ সালে তার নামে তুর্কির তৈরি একটি .১২ বোর শটগান ক্রয় করেন, যার নং-১৭৭৫৯। শটগান ব্যবহারের লাইসেন্স নং-০৬/২০১৬। তিনি প্রতি রাতে ঘুমানোর সময় লাইসেন্সকৃত অস্ত্রটি, তিনটি খোলা বুলেটসহ তার মাথার কাছে বালিশের পাশে রেখে ঘুমিয়ে থাকেন। গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাত অনুমানিক ১১টার সময় তিনি, স্ত্রী এবং তার ভাগ্নি রাতের খাওয়া দাওয়া শেষে থানার আট্টাকী গ্রামের দুই তলা বিশিষ্ট বাড়ির নিচ তলায় উত্তর-পূর্ব পাশের রুমে তার স্ত্রী এবং ভাগ্নি ঘুমিয়ে পড়ে। তিনি দ্বিতীয় তলার উত্তর-পূর্ব পাশের রুমে গিয়ে দরজার ছিটকিনি লাগিয়ে টিভি দেখে রাত ২টার দিকে বালিশের কাছে জানালার পাশে উক্ত শটগানসহ তার ব্যবহৃত দু’টি মোবাইল ফোন সেট খাটের উপর রেখে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোর ৫ টার দিকে তিনি ঘুম থেকে উঠে ফজরের নামাজ পড়ে আবার ঘুমিয়ে পড়েন। তখন তিনি অস্ত্র ও মোবাইল ফোনের বিষয়ে লক্ষ্য করেননি। সকাল সাড়ে ৭টায় ঘুম থেকে উঠে তিনি দেখেন মোবাইল ফোন দু’টি, তার শটগান এবং শটগানের তিনটি খোলা বুলেট নেই। তার ধারনা রাতের যে কোনো সময় অজ্ঞাত চোরেরা উক্ত মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। খোয়া যাওয়া মালামাল অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে তিনি থানায় অভিযোগটি দায়ের করেন। এদিকে ঘটনার পর ১৮ দিন অতিবাহিত হলেও খোয়া যাওয়া অস্ত্র-গুলি এখনো উদ্ধার করতে পারেনি থানা পুলিশ। তবে মামলার এজাহার এবং প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে দুই ধরনের বক্তব্যে নানা প্রশ্ন উঠেছে। ঘটনার স্থান সম্পর্কে কোথাও বলা হচ্ছে বাড়ির নিচ তলায় উত্তর-পূর্ব পাশের রুম আবার কোথাও বলা হচ্ছে দ্বিতীয় তলার উত্তর-পূর্ব পাশের রুম। অস্ত্রটি উদ্ধার না হওয়ায় জনমনে ভীতি সঞ্চার হচ্ছে। বৈধ অস্ত্র অবৈধ হয়ে গেলে নাগরিকদের জীবন-জীবিকা নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তি, শিল্পপতি ব্যবসায়ী এবং ফকিরহাটের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তার স্বার্থে পিবিআই এর মাধ্যমে তদন্ত করে দ্রুত অস্ত্রটি উদ্ধারসহ ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটনের জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকার সচেতন মহল।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers