বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০১:১০ পূর্বাহ্ন

বিশেষ বিজ্ঞপ্তি
ভর্তি চলিতেছ রৌফন রেডিয়ান্ট স্কুলে প্লে গ্রুপ থেকে শুরু। চুলকাটি বাজার, (রুটস বাংলাদেশ) বনিকপাড়া রোড, বাগেরহাট।
সংবাদ শিরোনাম :
জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বাগেরহাট জেলা-কমিটি অনুমোদন নয়ন স্মৃতি নাইট শর্ট ক্রিকেট টুর্নামেন্টে সৈয়দপুর চ্যাম্পিয়ন আত্মসমর্পণকারী দস্যুরা পেল র‌্যাবের ঈদ উপহার বাগেরহাটে দুস্থ ও অসহায়দের মধ্যে ঈদ উপহার বিতরণ করেছেন শেখ তন্ময় এমপি বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে মোংলায় মানববন্ধন বর্ণাঢ্য আয়োজনে রামপালে জাতীয় ভোটার দিবস পালন রামপালে স্থানীয় সরকার দিবস উদযাপন  বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা  প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী বিতরণ করেছে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোন পশুর চ্যানেলে তলা ফেটে দুর্ঘটনাকবলীত কার্গো জাহাজটি এখও ঝুকি মুক্ত নয়, চলছে কয়লা অপসারণ মোংলায় কয়লা নিয়ে পশুর নদীতে কার্গো ডুবি, ১১ নাবিক জীবিত উদ্ধার
মোঘল আমলের নিদর্শন ঝাউদিয়া শাহী মসজিদ

মোঘল আমলের নিদর্শন ঝাউদিয়া শাহী মসজিদ

চুলকাঠি ডেস্ক  : কুষ্টিয়া সদর থানার ঝাউদিয়া গ্রামে মোঘল সম্রাট শাহজাহানের রাজত্বকালে জমিদার শাহ সুফি আহমদ আলী ওরফে আদারী মিয়া মসজিদটি নির্মাণ করেন। এটি মোঘল শিল্পকলার এক অপূর্ব নিদর্শন। বর্তমানে সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এটি সংরক্ষণ করে আসছে।

মসজিদটি কুষ্টিয়া শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, ঝিনাইদহ ও কুষ্টিয়া জেলার মধ্যবর্তী স্থানে ঝাউদিয়া গ্রামে অবস্থিত। যা দেখতে প্রতিদিনই শত শত দর্শনার্থীর আগমন ঘটে। ভ্রমণপিপাসুদের আগমনে মুখরিত হয়ে ওঠে স্থানটি। তবে তাদের জন্য তেমন সুযোগ-সুবিধা নেই। নেই বিশ্রামের জায়গা।

jhaudia

স্থানটি দর্শনীয় হওয়া সত্ত্বেও দর্শকদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা না থাকায় পর্যটকরা এলেও অবস্থান করতে পারেন না। অন্যদিকে দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় মসজিদটি তার জৌলুসও হারাচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, ঝাউদিয়া শাহী মসজিদের সুদৃশ্য পাঁচটি গম্বুজ রয়েছে। চার কোণায় রয়েছে চারটি নান্দনিক মিনার এবং ভেতরে প্রবেশ দরজায়ও দুটি মিনার রয়েছে। এটি অপূর্ব শৈল্পিক কারুকাজ সম্বলিত একটি স্থাপনা, যা সহজেই মুগ্ধ করে সবাইকে।

jhaudia-2

ইতিহাস বলছে, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ইবি থানার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের নিভৃত পল্লি ঝাউদিয়া গ্রাম। এ গ্রামে সম্রাট শাহজাহানের আমলে ঐতিহ্যবাহী শাহী মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত হয়। আজ থেকে তিনশ বছর আগে সম্রাট শাহজাহান এ মসজিদ নির্মাণ ব্যয় বহন করেন। সে সময় নির্মাণ কাজ পরিচালনা করেন শাহ সুফি আদারী মিয়া চৌধুরী।

উপমহাদেশ থেকে আসা ধর্মপ্রচারক শাহ সুফি আদারী মিয়া চৌধুরী ৮৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর ১৯৬৯ সালে হাসান চৌধুরী তৎকালীন সরকারের সাথে একটি রেজিস্ট্রি চুক্তিনামা অনুযায়ী মসজিদটি প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের কাছে হস্তান্তর করে।

jhaudia-2

চুক্তিনামা অনুযায়ী, এ মসজিদের তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে থাকবেন হাসান আলী চৌধুরী অথবা তার বংশধর। বর্তমানে মসজিদ কমিটিতে তারই বংশধর। তারাই মসজিদটি পরিচালনা করছেন।

নিপুণ কারুকার্যে নির্মিত মসজিদটি পরিদর্শনে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে অসংখ্য মানুষ ভিড় করেন। বিশেষ করে প্রতি জুমার দিন এখানে লোক ধারণের জায়গা থাকে না। তাই মসজিদটিকে ঘিরে কিছু কুটির শিল্পও গড়ে উঠেছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

  1. © স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers