বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

বিশেষ বিজ্ঞপ্তি
ভর্তি চলিতেছ রৌফন রেডিয়ান্ট স্কুলে প্লে গ্রুপ থেকে শুরু। চুলকাটি বাজার, (রুটস বাংলাদেশ) বনিকপাড়া রোড, বাগেরহাট।
সংবাদ শিরোনাম :
জাতীয় সাংবাদিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বাগেরহাট জেলা-কমিটি অনুমোদন নয়ন স্মৃতি নাইট শর্ট ক্রিকেট টুর্নামেন্টে সৈয়দপুর চ্যাম্পিয়ন আত্মসমর্পণকারী দস্যুরা পেল র‌্যাবের ঈদ উপহার বাগেরহাটে দুস্থ ও অসহায়দের মধ্যে ঈদ উপহার বিতরণ করেছেন শেখ তন্ময় এমপি বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে মোংলায় মানববন্ধন বর্ণাঢ্য আয়োজনে রামপালে জাতীয় ভোটার দিবস পালন রামপালে স্থানীয় সরকার দিবস উদযাপন  বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা  প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী বিতরণ করেছে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোন পশুর চ্যানেলে তলা ফেটে দুর্ঘটনাকবলীত কার্গো জাহাজটি এখও ঝুকি মুক্ত নয়, চলছে কয়লা অপসারণ মোংলায় কয়লা নিয়ে পশুর নদীতে কার্গো ডুবি, ১১ নাবিক জীবিত উদ্ধার
এমএলএম ব্যবসার নামে ৫০ কোটি টাকা লুট এ’ওয়ানের

এমএলএম ব্যবসার নামে ৫০ কোটি টাকা লুট এ’ওয়ানের

রাজধানীর মতিঝিল এলাকায় অনুমোদনহীন ভুয়া মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) প্রতিষ্ঠান এ’ওয়ান বাজার লিমিটেডের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়েছে র্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়নের (র্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রতিষ্ঠানটি জেলা-উপজেলায় ডিলার ও সেলসম্যান নিয়োগের নামে প্রায় ৪০ হাজার গ্রাহকের কাছ অন্তত ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

অভিযান চালিয়ে প্রতিষ্ঠানটির সাত জনকে আটক করা হয়েছে। যাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত আইনে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত র্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসুর নেতৃত্বে মতিঝিলের আর কে মিশন রোডের ইত্তেফাক ভবনের পঞ্চম তলায় ওই প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়।

আটকরা হলেন- প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নুরুল ইসলাম (৪২), পরিচালক (অর্থ) ফেরদৌস খান (৪৮), পরিচালক (প্রশাসন) রেজাউল করিম মিন্টু (৫৬), পরিচালক (মানবসম্পদ) আবুল কালাম আজাদ (৪০), পরিচালক আসাদুল্যাহ দেওয়ান (৪৬), পরিচালক আব্দুস ছাত্তার (৩৭) এবং জাহাঙ্গীর আলম (৫০)।

র্যাব জানায়, ওই ভবনে অফিস নিয়ে এ’ওয়ান হেলথ কেয়ার এবং এ’ওয়ান বাজার লিমিটেড নামে সম্পূর্ণ অনুমোদনবিহীন এবং ভুয়া মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) কোম্পানি কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলো। তারা ভুয়া কোম্পানির নামে জেলা-উপজেলায় ডিলার ও সেলসম্যান নিয়োগের নামে প্রায় ৪০ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে অন্তত ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু জানান, আটকরা দীর্ঘদিন ধরে এ’ওয়ান হেলথ কেয়ার এবং এ’ওয়ান বাজার লিমিটেড নামে ডেসটিনির মতো গ্রাহক সংগ্রহ করে এমএলএম ব্যবসা করে আসছে। কিন্তু তাদের এ ধরনের ব্যবসার কোনো অনুমোদন নেই। এমনকি তারা যে নামে  প্রতিষ্ঠান খুলেছে আদৌ তার কোনো অস্তিত্বও নেই। যা সম্পূর্ণ ভুয়া একটি প্রতিষ্ঠান।

প্রতিষ্ঠানটি পরিচালক নিয়োগ দেওয়ার নাম করে এবং লবঙ্গ টি নামক বিএসটিআই অনুমোদনবিহীন নিন্মমানের একটি পণ্য বাজারজাতকরণের নামে ডিলার ও সেলসম্যান নিয়োগের প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

  1. © স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers