সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৫:১৮ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ

আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে ।

শিরোনাম :
রাখালগাছি ইউপি নির্বাচনে দলীয় ভাবে ও জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রবিউল ইসলাম ফারাজী রামপালে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি থেকে বাদ দেওয়ায় মানববন্ধন বাগেরহাটে কাভার্ডভ্যানের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বাগেরহাটে দি হাঙ্গার প্রজেক্টের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস পালিত ফকিরহাট উপজেলাকে এটুআই কর্তৃক স্মাট উপজেলা ঘোষনা মোমিন মেহেদীর ভেরিফায়েড পেইজ হ্যাকড রামপাল পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন রবিউল ইসলাম তোয়াব খানের মৃত্যুতে অনলাইন প্রেস ইউনিটির শোক “সেভ দ্য রোড-এর প্রতিবেদন” সেপ্টেম্বরে ৩ হাজার ৫৯৫ দুর্ঘটনায় প্রতিদিন আহত ১১৭, নিহত ১৭ জন উন্মোচন ক্লাব ও আবাহনী ক্রীড়াচক্র যৌথ চ্যাম্পিয়ন
বাংলাদেশের বন্ধু, ‘তুমি রবে নীরবে’

বাংলাদেশের বন্ধু, ‘তুমি রবে নীরবে’

ভারতের সদ্যপ্রয়াত রাষ্ট্রপতি ও বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ প্রণব মুখার্জি নিজেই ছিলেন একটি প্রতিষ্ঠান। উপমহাদেশের রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে তার বিচরণ, অবস্থান স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায়, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জনের পরতে পরতে ওতপ্রতভাবে জড়িত ছিলন তিনি। বাংলাদেশের অকৃত্রিম এই বন্ধুর অবদান বাংলাদেশ, বাংলাদেশের মানুষ চিরদিন গভীর কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণে রাখবে। বাংলাদেশ যতদিন থাকবে ততদিন এই অকৃত্রিম বন্ধুর নাম আমাদের স্বাধীনতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখিত থাকবে। তিন সপ্তাহ দিল্লি­র হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর ৩১ আগস্ট সোমবার বিকেলে মৃত্যু হয় ভারতীয় উপমহাদেশের রাজনীতির এই উজ্জ্বল নক্ষত্রের। তিনি ছিলেন দেশটির প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতি। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন সংকটে তিনি অসাধারণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি পরিণত বয়সে অর্থাৎ ৮৪ বছর বয়সে পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নেন। তিনি আমৃত্যু বাংলাদেশের পাশে থেকেছেন।

কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য, লোকসভার কংগ্রেস দলনেতাও হয়েছেন। এমন ভারতীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বিরল, যিনি প্রধানমন্ত্রীর পদটি ছাড়া কার্যত প্রায় সব শীর্ষপদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। তবু তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি বাংলাদেশের পরমমিত্র। সেই পরমমিত্র কিছুটা আকস্মিকভাবেই বিদায় নিলেন। স্মরণে আছে, প্রথম বাঙালি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হলেন প্রণব মুখার্জি। প্রথম শুভেচ্ছা জানিয়ে ফোনটি করেছেন আরেকজন বাঙালি, তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সালটা ছিল ১৯৯৫। প্রণব মুখার্জি সবসময় বলতেন, বাংলাদেশ আর ভারতের সম্পর্কটা নিছক দুই প্রতিবেশীর সম্পর্ক নয়। দুটি দেশের তো আসলে ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, ভাষা সব নিয়ে নাড়ির বন্ধন, অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক। তারপর ২০০৭ সালের ১ ডিসেম্বর মুখার্জি ঢাকা আসেন ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে ত্রাণ দেয়ার উদ্দেশ্যে। ২০০৭ সালের নভেম্বর মাসে হয়েছিল সে ঘূর্ণিঝড়। ২০০৮ সালে শেখ হাসিনা বিপুল ভোটে বিজয়ী হন। সেদিন তিনি এত খুশি হয়েছেন যা আগে হয়নি। প্রণব মুখার্জি বলেন, ‘‘শেখ হাসিনা আমার পারিবারিক বন্ধু। আওয়ামী লীগের কোনো নেতা শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে কার্যকলাপ করলে তাকে অভিভাবকের মতো ধমক দিতেন। বলতেন, এমন করবেন না। তিনি কত কষ্ট করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।’’

দীর্ঘ পাঁচ দশকের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে ভারতের পাশাপাশি উপমহাদেশজুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ভারত সরকার সাত দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করে তার প্রতি বিরল শ্রদ্ধা জানিয়েছে। বাংলাদেশ একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন করেছে এই অকৃত্রিম বন্ধুর স্বরণে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইটে বলেছেন, ভারতরত্ন প্রণব মুখার্জির প্রয়াণে ভারত আজ শোকগ্রস্ত। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বজন শ্রদ্ধেয় এ রাজনীতিকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা প্রণব মুখার্জিকে বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু ও পরম সুহৃদ বলে মন্তব্য করেছেন। প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে ২ সেপ্টেম্বর বুধবার রাষ্ট্রীয় শোক পালন করে বাংলাদেশ। এদিন দেশের সব প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়।

প্রণব মুখার্জি দীর্ঘদিন ডায়াবেটিসের রোগী ছিলেন। ১০ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তির পর ধরা পড়ে তিনি করোনাভাইরাসেও আক্রান্ত হয়েছেন। সে অবস্থাতেই ওই দিন রাতে দীর্ঘ অস্ত্রোপচার হয়। তারপর থেকে তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল। অস্ত্রোপচারের আগে নিজের করোনা সংক্রমিত হওয়ার খবর টুইট করে জানিয়েছিলেন তিনিই। সেটাই ছিল তার শেষ টুইট। পাঁচ দশকের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের বেশিরভাগ সময় কংগ্রেসে কাটানো প্রণবের পদধূলি নেয়ার ছবি শেয়ার করে বিপরীত রাজনৈতিক দর্শনের দল বিজেপির নেতা মোদি লিখেছেন, ‘দেশের উন্নয়নের গতিপ্রকৃতিতে তিনি এক অবিস্মরণীয় ছাপ রেখে গেছেন। একজন অসাধারণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, এক গৌরবময় রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতির সব মহল আর সমাজের সব শ্রেণিতে তিনি শ্রদ্ধা পেয়েছেন।’ একাত্তরে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যসভার সদস্য থাকাকালে তখনকার কংগ্রেস নেতা প্রণব মুখার্জি যেমন মুক্তিকামী বাঙালির পক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন, তেমনি তিনি বন্ধু ছিলেন ভারতের রাষ্ট্রপতি হয়েও।

তার স্ত্রী রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী শুভ্রা মুখার্জি ছিলেন বাংলাদেশের নড়াইলের মেয়ে। প্রণব-শুভ্রা দম্পতির দুই ছেলে ইন্দ্রজিৎ মুখার্জি ও অভিজিৎ মুখার্জি ছাড়াও একমাত্র মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখার্জি নিজ নিজ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত। বড় ছেলে অভিজিৎ মুখার্জি পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গিপুর আসন থেকে দুবার কংগ্রেসের মনোনয়নে পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া শর্মিষ্ঠা একজন কত্থক নৃত্যশিল্পী। কংগ্রেসের রাজনীতিতে যুক্ত হয়েছেন তিনিও। মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখা বিদেশি বন্ধু হিসেবে ২০১৩ সালের ৪ মার্চ প্রণবের হাতে ‘বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা’ তুলে দিয়েছিলেন বাংলাদেশের তখনকার রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত দুটো পৃথক শোকবাণীর অংশ বিশেষ এখানে বিবৃত করছি। রাষ্ট্রপতি শোকবার্তায় বলেছেন, ‘‘প্রণব মুখার্জির মৃত্যু ভারতীয় উপমহাদেশের রাজনীতির জন্যই এক অপূরণীয় ক্ষতি। প্রণব মুখার্জি ছিলেন বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে তার ভূমিকা আমাদের বিজয়কে ত্বরান্বিত করেছিল। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জনমত তৈরিতে তার ছিল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা’’।

প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে শোকে কাতর ও স্মৃতিকাতর হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রণব মুখার্জির সঙ্গে বঙ্গবন্ধু পরিবার ও শেখ হাসিনার নিজের বহু স্মৃতি প্রধানমন্ত্রী স্মরণ করেন। শোকবার্তায় তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে একজন রাজনীতিবিদ ও আমাদের পরম সুহৃদ হিসেবে প্রণব মুখার্জির অনন্য অবদান কখনও বিস্মৃত হওয়ার নয়। আমি সবসময় মুক্তিযুদ্ধে তার অসামান্য অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি।’’ প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর ভারতে নির্বাসিত থাকাকালীন প্রণব মুখার্জি আমাদের সবসময় সহযোগিতা করেছেন। এমন দুঃসময়ে তিনি আমার পরিবারের খোঁজ-খবর রাখতেন, যেকোনো প্রয়োজনে পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। দেশে ফেরার পরও প্রণব মুখার্জি সহযোগিতা এবং উৎসাহ দিয়েছেন। তিনি আমাদের অভিভাবক ও পারিবারিক বন্ধু। যেকোনো সংকটে তিনি সাহস জুগিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে ভারত হারাল একজন বিজ্ঞ ও দেশপ্রেমিক নেতাকে আর বাংলাদেশ হারাল একজন আপনজনকে। তিনি উপমহাদেশের রাজনীতিতে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে বেঁচে থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।’’

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২১, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers