রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ

আমাদের চুলকাঠি ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন chulkati24@gmail.com এই ই-মেইলে ।

শিরোনাম :
২১ মে রামপালের ডাকরা গণহত্যা দিবসে স্মৃতিচারণ ও মোমবাতি প্রজ্বলন  “আসন্ন কমিটি গঠন করার লক্ষে” ফকিরহাট থানা বিএনপি’র একাংশের মতবিনিময় বাগেরহাটে আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা প্রতিযোগিতার উদ্বোধন বাগেরহাটে তাঁতী লীগের পরিচিতি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বাগেরহাটে শ্রমিকলীগে ও সেচ্ছাসেবকলীগের নেতৃবৃন্দের বিরুদ্বে সাংগঠনিক ব্যাবস্থার সিন্ধান্ত ফকিরহাটে ভূমি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালী অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে ভ‚মি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালী অনুষ্ঠিত প্রয়াত সাংবাদিক পংকজ কর্মকার এর ৩য় মূত্যুবার্ষিকী পালিত বাগেরহাটে জোয়ারের পানির চাপে তলিয়ে গেছে বসত বাড়ি ও মৎস্য ঘের বেতাগায় পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির ত্রিপক্ষীয় বাস্তবায়ন চুক্তি স্বাক্ষর
পাকিস্তান নয়, ভারতের পরমাণু রাডারের নতুন লক্ষ্য চীন

পাকিস্তান নয়, ভারতের পরমাণু রাডারের নতুন লক্ষ্য চীন

চুলকাঠি ডেস্কঃ সবদিক থেকেই তৈরি ভারত। আলোচনার রাস্তা খোলা রেখে প্রস্তুতি সারছে দেশটি। চীনের সঙ্গে যে কোনও সংঘাতের পথে যেতে তৈরি ভারত। সাম্প্রতিক সময়ে পরমাণু শক্তিধর দেশ ভারত নিজেদের পরমাণু নীতির অভিমুখও বদল করেছে। পাকিস্তান নয়, এখন নয়াদিল্লির পরমাণুর নীতির মূল লক্ষ্য চীনকে ভয় দেখানো।রিপোর্ট বলছে, ভারতের পরমাণু অস্ত্রগুলির রাডারে চলে এসেছে চীন। ২০১৭ সালের ডোকলাম পর্বের পর থেকেই এই রাডারের অভিমুখ বদল হয়েছে। ভুটান সীমান্তে সংঘাতের পর থেকেই চরম সতর্কতা জারি করা হয় ভারতের সেনাবাহিনী ও বিমান বাহিনীর মধ্যে। পরমাণু বিশেষজ্ঞ হ্যানস এম ক্রিস্টেনসেন ও ম্যাট কোর্ডা একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেন গত ২০ জুলাই। যেখানে এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়।তারা ওই প্রতিবেদনে জানান, এতদিন পাকিস্তানের সঙ্গে সংঘাতের জেরে নয়াদিল্লির পরমাণু নিশানার মূলে ছিল ইসলামাবাদ। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে শত্রু বদলেছে। এবার তালিকার নতুন সংযোজন চীন। ভারতের নতুন অগ্নি মিসাইলের যা রেঞ্জ, তা চীনকে লক্ষ্য রেখেই তৈরি করা বলে মনে হচ্ছে।প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, পরবর্তী দশকে চীনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের ফলশ্রুতিই মিসাইলের অভিমুখ নির্ধারণ করবে। এছাড়াও চীনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের ভিত তৈরি করবে চীনের সঙ্গে পাকিস্তানের সখ্যতার গভীরতা। ফলে চীন ও পাকিস্তান দুই দেশই ভারতের কাছে একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ।তবে রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারত ধীরে চলো নীতি নিয়েছে। সবদিক বিবেচনা করেই এগোতে চাইছে ভারত। তাই আলোচনার রাস্তাও খোলা রেখেছে। ফলে দীর্ঘকাল ধরে যে নীতিতে চলছে নয়াদিল্লি, সেই রাস্তাতেই প্রথমে হাঁটতে চাইছে তারা। দীর্ঘকাল ধরে ভারতের নীতি নো ফার্স্ট ইউজ পলিসি। অর্থাৎ প্রথমেই কোনও চরম পদক্ষেপ ভারত নেবে না। তবে কেউ আঘাত করলে, সেই উত্তর দেওয়ার পূর্ণ ক্ষমতা রাখবে ভারত।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০২০২, www.chulkati24.com

কারিগরি সহায়তায়ঃ-SB Computers